মৃত্যুদিনে টুকরো কথায় ইন্দিরা দেবী চৌধুরাণী

মৃত্যুদিনে টুকরো কথায় ইন্দিরা দেবী চৌধুরাণী

শ্রেয়া সাহা

সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর ও জ্ঞানদানন্দিনী দেবীর মেয়ে
ইন্দিরা দেবী চৌধুরাণীর আজ মৃত্যুদিন। ১৯৬০ সালের ১২আগস্ট প্রয়াত হন তিনি।ইন্দিরা দেবী চৌধুরাণী সঙ্গীতশিল্পী, লেখক ও অনুবাদক হিসাবে পরিচিত। এমনকি ঠাকুরবাড়ির সমস্ত মেয়েদের মধ্যে তিনিই প্রথম বি.এ পাশ করেন।

২৯ ডিসেম্বর, ১৮৭৩ সালে ইন্দিরা দেবীর জন্ম তৎকালীন বোম্বাই প্রদেশের কারোয়ারে। যদিও পৈতৃক নিবাস কলকাতা জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ি। তাঁর মাতা জ্ঞানদানন্দিনীও ছিলেন একজন ব্যতিক্রমী, বিদুষী ও প্রগতিশীল মহিলা।
পরবর্তীতে ১৮৮১ সালে প্রথমে সিমলার অকল্যান্ড হাউজে এবং পরে কলকাতার লরেটো হাউজে পড়াশোনা করেন। ১৮৮৭ সালে তিনি এন্ট্রান্স ও পরে এফএ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৮৯২ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএ পরীক্ষায় মেয়েদের মধ্যে প্রথম স্থান লাভ করে তিনি ‘পদ্মাবতী’ স্বর্ণপদকে ভূষিত হন।
১৮৯৯ সালে তিনি তাঁর পছন্দের পাত্র প্রমথ চৌধুরীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।

ইন্দিরা দেবী চৌধুরাণী পেশায় একজন সঙ্গীতশিল্পী, লেখক ও অনুবাদক।কিছুদিন সেতার বাজানও শিখেছিলেন। অনুবাদক হিসেবে ইন্দিরা দেবী অল্পবয়সেই খ্যাতি অর্জন করেন। কৈশোরে তিনি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর পরিচালিত ও মাতা জ্ঞানদানন্দিনী সম্পাদিত বালক পত্রিকায় রাস্কিনের রচনার বাংলা অনুবাদ প্রকাশ করেন। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বহু কবিতা, গল্প ও প্রবন্ধসহ ডায়রী-র ইংরেজি অনুবাদও তিনি প্রকাশ করেন।১৯৪৪ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় তাঁকে ‘ভুবনমোহিনী’ স্বর্ণপদক, ১৯৫৭ সালে বিশ্বভারতী থেকে তিনি ‘দেশিকোত্তম’ এবং ডি-লিট ডিগ্রী লাভ করেন এবং ১৯৫৯ সালে রবীন্দ্রভারতী সমিতি প্রথমবারের মতো ‘রবীন্দ্রপুরস্কার’-এ ভূষিত করে।

admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *